সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

২৯শে শাবান, ১৪৪২ হিজরি

নোটিশঃ
★সিলেটের বার্তায় প্রতিনিধি/সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। তাই যোগাযোগ করুন নিম্নের মেইল অথবা নাম্বারে।
আজকের আকাশে দেখা মিলবে পিংক মুন বা গোলাপি চাঁদ

আজকের আকাশে দেখা মিলবে পিংক মুন বা গোলাপি চাঁদ

সিলেটের বার্তা ডেস্ক:: আজকের আকাশে দেখা মিলবে পিংক মুন বা  গোলাপী চাঁদ।
আজ (৭ এপ্রিল) আকাশে উঠবে এ বছরের সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে উজ্জ্বল চাঁদ যার নাম দেওয়া হয়েছে পিংক মুন বা গোলাপী চাঁদ। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে বুধবার ভোর পর্যন্ত পিংক সুপার মুন দেখা যাবে। সাধারণ পূর্ণিমার চাঁদের থেকে বেশি বড় ও উজ্জ্বল হয় বলে একে বলা হয় পিংক সুপার মুন।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, চাঁদের রঙ গোলাপী নয়। তবে চাঁদের গোলাপী আভার প্রতিফলন মানুষের চোখে এসে পড়বে বলে মানুষ সেটাকে গোলাপী চাঁদ হিসেবেই দেখবে। তবে এটা দেখার জন্য চাঁদ ও পৃথিবীর মধ্যে গড় দূরত্ব হতে হবে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৯০৭ কিমি।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন, চাঁদের থেকে পৃথিবীর গড় দূরত্ব ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪০০ কিমি। কিন্তু এই ৭ই এপ্রিল ২৭ হাজার ৪৯৩ কিমি দূরত্ব কমে যাবে চাঁদ ও পৃথিবীর মধ্যকার। আর সেই কারণেই চাঁদকে দেখা যাবে গোলাপী। এই চাদকে যখন প্রায় ২৮ কিমি কাছ থেকে দেখা যাবে, তখন স্বাভাবিকে ভাবেই চাঁদের আকৃতিও বেড়ে যাবে অনেকটাই। আর এই চাঁদকেই বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় সুপার মুন। মোট ৩০% বড় হয়ে যাবে এই চাঁদের আকৃতি।

সুপার মুন আকারে সাধারণ চাঁদের থেকে ১৪ শতাংশ বড় এবং ৩০ শতাংশ উজ্জ্বল হয়। পিংক সুপার মুন হবে এই বছরের সবচেয়ে বড় এবং উজ্জ্বল চাঁদ। বায়নোকুলার থাকলে তা দিয়ে আরও সুন্দর গোলাপী চাঁদ দেখতে পাবেন আপনি।

পিংক মুন বা গোলাপী চাঁদের নামকরণের কারণ হিসেবে বিবিসি বাংলা তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আমেরিকা ও কানাডায় এপ্রিল মাসে বসন্তের শুরুতে ফ্লক্স নামে একধরনের বুনো ফুল ফোটে যার রং গোলাপি আর সেখান থেকেই এপ্রিলের পূর্ণ চাঁদের নাম পিংক মুন।

পৃথিবীর অন্যান্য দেশে এপ্রিলের পূর্ণ চন্দ্রের হরেক রকম নাম আছে- যেমন গ্রাস মুন (ঘাস-চাঁদ), এগ মুন (ডিম-চাঁদ) এবং ফিশ চাঁদ (মাছ-চাঁদ)।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, অসাধারণ ঔজ্জ্বল্য আর বিশাল আয়তন ছাড়াও এপ্রিল মাসের পূর্ণিমার সঙ্গে জড়িয়ে আছে অনেক দেশের গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় উৎসব।

খ্রিস্টানদের ইস্টার পালিত হবে পূর্ণিমার পরের রোববারে। সেইদিন দিনের আলো ও রাতের অন্ধকারের দৈর্ঘ্য হবে সমান যাকে বলা হয় বসন্তকালীন ইকুইনক্স। ভারতের হিন্দুরা এই সময় উদযাপন করে হনুমান জয়ন্তী। এপ্রিলের পূর্ণিমার দিন শুরু হয় ইহুদীদের পাসওভার।

শেয়ার করুন
  •  
  • 224
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





Sylheter#Barta@777

©এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব sylheterbarta24.com কর্তৃক সংরক্ষিত