সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৪২ পূর্বাহ্ন২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

২৯শে শাবান, ১৪৪২ হিজরি

নোটিশঃ
★সিলেটের বার্তায় প্রতিনিধি/সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। তাই যোগাযোগ করুন নিম্নের মেইল অথবা নাম্বারে।
যাদের নিয়ে কেউ ভাবেনা, তাদের জন্যই আইকন

যাদের নিয়ে কেউ ভাবেনা, তাদের জন্যই আইকন

সিলেট নগরের ক্বীন ব্রিজের নাম শুনে নি এমন কেউ হয়তো খোঁজে পাওয়া যাবে না। প্রাচীণ ঐতিহ্যের স্মৃতির মাইল ফলক এটি। সুরমা নদীর উপর দাঁড়িয়ে সেতুর মেলবন্ধনই হচ্ছে ‘ক্বীন ব্রিজ’।

এই ক্বীন ব্রিজ দিয়ে যাতায়াতের সময় পথচারীদের নজরে পড়ে সমাজের নিম্নশ্রেণির নানা রঙ-ঢঙের মানুষ। ব্রিজের খাম্বা আর সুরমাপাড়ের তীরঘেষে গল্প আর চাদর মুড়িয়ে ঘুমকাতুরে ছিন্নমূল মানুষের চিত্র সবারই দেখা।

পথশিশু, ঠিকানাহীন বৃদ্ধসহ শ্রমজীবীদের শান্তির নীড় যেনো এই ক্বীন ব্রিজ। কিন্তু তাদের নিয়ে কেউ ভাবে না। শীতকালে শীতবস্ত্র পায় তারা। মাঝেমধ্যে খাবার বিলিয়ে দেয় বহু সংগঠন। কিন্তু অক্ষর বা স্বাক্ষর জ্ঞান তো দূর কি বাত। যাদের মধ্যে নেই কালিমার জ্ঞান। ওযু, গোসলের ফরজ সম্পর্কে তারা একেবারেই গাফেল। দিনমজুর এসব মানুষের জন্য নেই কোনো প্রতিষ্ঠান। অবশ্য তারাও ব্যস্ত রুটিরোজির দ্বান্ধায়। কেবল রাতের বেলা ফুরসত পেলে সুরমার পাড়ে গিয়ে বাতাস গায়ে লাগায় এসব মানুষরা।

তাই আইকন ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ প্রথমে টার্গেট করে ক্বীন ব্রিজকে। যাদের যাত্রা শুরু হয় ব্লাড ডুনেশন দিয়ে। মুমুর্ষ রোগীদের রক্তের প্রয়োজন হলে আইকন ফাউন্ডেশন রক্তদাতার সন্ধান দেয়। রোগীর খোঁজ খবর নিয়ে ফাউন্ডেশনের সদস্যরা স্বেচ্ছায় রক্ত দিতে হাজির হয়ে যথাস্থানে।

বাহ্যিক রোগের চিকিৎসা আছে কিন্তু আত্মিক রোগের চিকিৎসা কী? মধ্যবিত্ত থেকে শুরু করে বড় লোকদের জন্যই কী শুধু শিক্ষা? তবে ছিন্নমূল, পথশিশু আর শ্রমজীবীদের কী হবে। যারা মুসলমান তাদের শুদ্ধভাবে কালিমা, নামাজ, ওযু-গোসল শেখানোর জন্য তো নেই কোনো মাদরাসা। এসব বিষয় মাথায় রেখে আইকন ফাউন্ডেশন পরিকল্পনা হাতে নিল। যা ৫ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার রাত ৯টায় সমাজের ছিন্নমূলে বাস করা অসহায়, নিরক্ষর দিনমজুর, ভিক্ষুক ও পথশিশুদের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিতে যাত্রা শুরু করে আইকন পাঠশালার।

গতরাত (১২ মার্চ) শুক্রবার ছিল আইকন পাঠশালার ৬ষ্ট তম ক্লাস। ৩০ জন ছিন্নমূল মানুষের অংশগ্রহণ ছিল এই পাঠশালায়। সূরা ফাতিহা আংশিক শেখানো হয়।

আইকন ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, ছিন্নমূল মানুষের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিতে তাদের এই উদ্যোগ। ফাউন্ডেশনের অধীনে আইকন পাঠশালা একটি উপ শাখা।

জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর এর ফাযেল, জামেয়াতুল খাইর সিলেটের শিক্ষক তরুণ আলেম মাওলানা মাসরুর আহমদ এই পাঠশালার মূল জিম্মাদার।

প্রতি জুমাবারে ডজনখানেক তরুণ আলেম-হাফেজরাই ক্বীন ব্রিজের এই আইকন পাঠশালায় শিক্ষক হিসেবে উপস্থিত থাকেন।

এ ব্যাপারে আইকন ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক বলেন-প্রতিক্লাসে ৩০ থেকে ৪০ জন হয়ে থাকেন। আমরা প্রত্যেকের নাম-ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার রেজিস্ট্রার করেছি।

পাঠশালায় এ যাবত কি কি শেখানো হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন-প্রতি জুমাবারে শিক্ষার্থীর পরিবর্তন ঘটে। পরিবর্তন কেন তা তো স্পষ্ট বিষয়। খেটেখাওয়া মানুষ। এক শুক্রবারে আসলে আরেক সপ্তাহে ভুলে যায় বা কর্ম নিয়ে ব্যস্ত। যাই হোক, এ পর্যন্ত আমরা কালিমা তাইয়্যেবা, কালেমা শাহাদত শিখিয়েছি এবং সূরা ফাতেহা আংশিক শেখানো হয়েছে।

ছিন্নমূল মানুষের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিতে তিনি শাহজালালের নগরীর শিক্ষিত তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

শেয়ার করুন
  •  
  • 336
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





Sylheter#Barta@777

©এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব sylheterbarta24.com কর্তৃক সংরক্ষিত