বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪৭ পূর্বাহ্ন১লা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

১লা রমজান, ১৪৪২ হিজরি

নোটিশঃ
★সিলেটের বার্তায় প্রতিনিধি/সংবাদদাতা নিয়োগ চলছে। তাই যোগাযোগ করুন নিম্নের মেইল অথবা নাম্বারে।
সিলেটে ইতিহাসের প্রথম ভার্চুয়াল কোর্ট বসছে আজ

সিলেটে ইতিহাসের প্রথম ভার্চুয়াল কোর্ট বসছে আজ

সিলেটের বার্তা ডেস্ক:: বিচারক এজলাসে বসবেন। আইনজীবী, সাক্ষীদের সশরীরে আসতে হবে না। ভিডিওতে তারা বিচারকার্যে অংশ নেবেন। 

নতুন এক পদ্ধতির মাধ্যমে আদালতে ভীড় জমানোর সুযোগ থাকবে না।

দেশের অন্যান্য স্থানের মতো সিলেটেও আজ সোমবার থেকে বসছে ইতিহাসের প্রথম ভার্চুয়াল কোর্ট।

কারণ নিম্ন আদালতে শুধু জামিন শুনানি চলবে।

এছাড়া উচ্চ আদালতেও তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে জরুরি বিষয়সমূহ নিষ্পত্তির জন্য হাইকোর্ট বিভাগের জন্য পৃথক তিনটি বেঞ্চ এবং আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির বেঞ্চ গঠন করা হয়েছে।

রোববার সকালে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের সভাপতিত্বে সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের ভার্চুয়াল সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সুপ্রিমকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবরের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে ভার্চুয়াল কোর্টের বিষয়ে তথ্য জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘করোনাভাইরাসের কারণে ১৬ মে পর্যন্ত আদালত ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ অবস্থায় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত প্রত্যেক জেলা ও দায়রা জজ, মহানগর এলাকার মহানগর দায়রা জজ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক, বিশেষ জজ, শিশু আদালতের বিচারক, সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক, জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক এবং চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট/ চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিজে অথবা তার নিয়ন্ত্রণাধীন এক বা একাধিক ম্যাজিস্ট্রেট দ্বারা অত্র কোর্ট জারিকৃত বিশেষ প্র্যাকটিস নির্দেশনা অনুসরণ করে শুধুমাত্র জামিন সংক্রান্ত বিষয়সমূহ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার উদ্দেশে আদালতের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো। এই আদেশ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।’
ফুল কোর্ট সভায় আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিরা অংশ নেন। সভা শেষে সুপ্রিম কোর্টে বেঞ্চ গঠনের সিদ্ধান্তও গৃহীত হয়।

সুপ্রিমকোর্টের মুখপাত্র ব্যারিস্টার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান।সাংবাদিকদের বলেছেন, এই নির্দেশনা অনুযায়ী আগামীকাল (সোমবার) থেকেই অধস্তন আদালতে এবং হাইকোর্ট বিভাগে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে বিচার কার্যক্রম শুরু হবে।

এর আগে শনিবার আদালতে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার অধ্যাদেশ ২০২০ জারি করা হয়।

অধ্যাদেশের ৩ (১) ধারায় বলা হয়েছে, ফৌজদারি কার্যবিধি বা দেওয়ানী কার্যবিধি বা আপাতত বলবৎ অন্য কোনো আইনে যা কিছুই থাকুক না কেন, যে কোনো আদালত এই অধ্যাদেশের ৫ ধারার অধীনে জারিকৃত প্রাকটিস নির্দেশনা সাপেক্ষে, অডিও, ভিডিও বা অন্য কোন ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে বিচারপ্রার্থী পক্ষগণ বা তাদের আইনজীবী বা সংশ্লিষ্ট অন্য কোনো ব্যক্তি বা সাক্ষীগণের ভার্চুয়াল উপস্থিতি নিশ্চিতক্রমে যে কোনো মামলার বিচার বিচারিক অনুসন্ধান বা দরখাস্ত বা আপিল শুনানি, সাক্ষ্য গ্রহণ বা যুক্তিতর্ক গ্রহণ, আদেশ বা রায় প্রদান করতে পারবে।

৩(২) উপধারায় বলা হয়েছে, উপধারা-১ এর অধীনে অডিও, ভিডিও বা অন্য কোন ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে বিচারপ্রার্থী পক্ষগণ বা তাদের আইনজীবী বা সংশ্লিষ্ট অন্য কোনো ব্যক্তি বা সাক্ষীগণের ভার্চুয়াল উপস্থিতি নিশ্চিত করা ছাড়া অন্যান্য বিষয়ের ক্ষেত্রে ফৌজদারি কার্যবিধি বা ক্ষেত্রমতে দেওয়ানী কার্যবিধি অনুসরণ করতে হবে। আর অধ্যাদেশের ৫ ধারায় হাইকোর্ট বিভাগ থেকে প্রাকটিস ডাইরেকশন দেওয়ার কথা বলা হয়।

শেয়ার করুন
  •  
  • 271
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





Sylheter#Barta@777

©এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব sylheterbarta24.com কর্তৃক সংরক্ষিত