বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৯:১৩ অপরাহ্ন৬ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নোটিশঃ
সিলেট চারটি বিভাগ ও সকল উপজেলা  উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আবেদন পাঠাতে আপনাকে যা করতে হবে : • ছবিসহ জীবন বৃত্তান্ত পাঠাতে হবে আমাদের ই মেইলে। ই-মেইল: sylheterbarta24.com@gmail.com • সিভি অবশ্যই নিজের ব্যক্তিগত মেইল থেকে পাঠাতে হবে। কারণ যে মেইল থেকে সিভি পাঠাবেন পত্রিকা থেকে সেই মেইলেই রিপ্লাই দেয়া হবে। •ই-মেইল পাঠাতে বিষয় বস্তু অর্থাৎ Subject–এ লিখতে হবে কোন জেলা/ উপজেলা/ ক্যাম্পাস প্রতিনিধি। •আবেদনকারীকে সর্বনিন্ম এইচএসসি পাশ হতে হবে। •পরিশ্রমী, মেধাবী এবং আগ্রহী অভিজ্ঞ/নতুনদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। •নিউজের পাশাপাশি প্রতিনিধিদের পত্রিকার আয়ের একমাত্র উৎস বিজ্ঞাপন সংগ্রহেও মনোযোগী হতে হবে। •প্রার্থীদের মধ্যে থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত জেলা/উপজেলা/ক্যাম্পাস প্রতিনিধিদের নিয়মিত সম্মানী বাবদ প্রতিনিধিদের নিজের পাঠানো বিজ্ঞাপনের আয়ের ৫০% বিজ্ঞাপনের বিল পরিশোধের সাথে সাথেই দেয়া হবে। বিজ্ঞাপন না দিলে সিলেটের বার্তা কর্তৃপক্ষ কোন প্রকার সম্মানী প্রদান করবে না। •নিজেদের প্রকাশিত নিউজ অবশ্যই নিজের ফেসবুকে শেয়ার করতে হবে একই সঙ্গে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমেও শেয়ার করতে হবে। •অবশ্যই অফিস থেকে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। • নিউজ অবশ্যই ইউনিকোড ফন্টে লিখতে হবে। সাথে অবশ্যই নিউজ সংশ্লিষ্ট ছবি পাঠাতে হবে। • চূড়ান্ত নিয়োগের পর আইডি কার্ড প্রদান করা হবে। বি:দ্র: সিলেটের বার্তা ২৪.কম অনলাইন নিউজ পোর্টাল কোন গ্রুপ/কোম্পানীর অর্থায়ন বা স্পন্সর দ্বারা পরিচালিত নয়। নিজস্ব আয়ে অনলাইন পত্রিকা পরিচালিত হয়। তাই সিলেটের বার্তাকে নিজের পত্রিকা ভাবতে পারলেই আবেদন করবেন।  
সংবাদ শিরোনাম :
কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জের পরিত্যক্ত রোপওয়ে পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অধীনে আনা হবে সিলেটে হবে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের ৩টি ম্যাচ, সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেবে এসএমপি দোয়ারাবাজারে পিআইসি সভাপতির গর্ত কেড়ে নিল বৃদ্ধের প্রাণ জামিয়া আঙ্গুরার কৃতি ছাত্রদের বৃত্তি প্রদান করল আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট অস্ট্রেলিয়ায় মধ্যাকাশে মুখোমুখী দুই বিমান, নিহত ৪ মানব পাচার মামলায় মাধবপুরের কাউন্সিলর গ্রেফতার দক্ষিণ সুরমা ও জকিগঞ্জে র‌্যাবের অভিযানে আটক ২ সিলেটে যাত্রীবাহী বাস আটকে ডাকাতি, স্বর্ণালঙ্কারসহ নগদ টাকা লুট তাহিরপুরে পতাকাবৈঠকে চোরাচালান, নারী ও শিশু পাচার নিয়ে আলোচনা মরা গাঙে রূপ নিয়েছে সুরমা নদী
স্বল্প সময়ে দুই মামলার রায়: সব অপরাধেরই দ্রুত বিচার দরকার

স্বল্প সময়ে দুই মামলার রায়: সব অপরাধেরই দ্রুত বিচার দরকার

বৃহস্পতিবার দুটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় বেরিয়েছে। একটি ছিল আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলা, অন্যটি ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা।
প্রথমটিতে লিটন হত্যার দায়ে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালত ৮ আসামির ৭ জনের বিরুদ্ধেই মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন, বাকি একজন ইতিমধ্যেই মারা গেছেন। দ্বিতীয় মামলায় সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোয়াজ্জেম হোসেনকে সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক ৮ বছরের কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন। একইসঙ্গে তাকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
এর আগে বুধবার চাঞ্চল্যকর হলি আর্টিজানের মর্মান্তিক জঙ্গি হামলার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলারও রায় বেরিয়েছে। এই রায়ে ৮ আসামির মধ্যে ৭ জনকে ফাঁসির দণ্ড দেয়া হয়েছে, খালাস পেয়েছেন একজন। বলা বাহুল্য, এই তিন মামলারই কার্যক্রম অল্প সময়ের মধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। উল্লেখ্য, ফেনীর নুসরাত হত্যা মামলার রায়ও দ্রুততার সঙ্গে দেয়া হয়েছিল।
এটা অত্যন্ত আশার কথা যে, চাঞ্চল্যকর মামলাগুলোর বিচার প্রক্রিয়া অতি দ্রুতই সম্পন্ন হচ্ছে। বিচারহীনতা অথবা বিলম্বিত বিচারের যে সংস্কৃতি চালু রয়েছে, তা থেকে বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে বিচারব্যবস্থা।
ইংরেজিতে একটি কথা চালু আছে- জাস্টিস ডিলেইড, জাস্টিস ডিনাইড, অর্থাৎ বিচার প্রক্রিয়া যখন প্রলম্বিত হয়, তখন বিচারকে অস্বীকার করা হয়। অতঃপর প্রতিটি মামলারই দ্রুত বিচার সম্পন্ন হওয়া বাঞ্ছনীয়।
কিন্তু পরিতাপের বিষয়, দেশে মামলাজটসহ নানা কারণে বিচার প্রক্রিয়া বিলম্বিত হচ্ছে। এর ফলে বিচারপ্রার্থীদের মধ্যে একদিকে যেমন হতাশার সৃষ্টি হয়, অন্যদিকে তাদেরকে পোহাতে হয় নানা ধরনের ভোগান্তি। আর্থিক ক্ষতির বিষয়টি তো রয়েছেই।
বিচার বিলম্বিত হলে ন্যায়বিচার পাওয়ার সম্ভাবনাও কমে যায়। আমরা তাই বলব, উপরের মামলাগুলোর মতো বিশেষত চাঞ্চল্যকর মামলাগুলোর বিচার প্রক্রিয়া যাতে দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন হয়, সেদিকে সংশ্লিষ্টদের নজর দিতে হবে।
দেশে একের পর এক হত্যাসহ নানা ধরনের অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। এটা ঠিক, অপরাধের সংখ্যা বিচারে প্রতিটি অপরাধের বিচার দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন করা সহজ নয়। কাজটি কীভাবে সহজ করা যায়, তা নিয়ে চিন্তাভাবনার অবকাশ রয়েছে। বিচারকের সংখ্যা এ ক্ষেত্রে একটি বড় বাধা নিঃসন্দেহে।
মামলার সংখ্যার অনুপাতে বিচারকের সংখ্যা কম; ফলে মামলাজট অবশ্যম্ভাবী হয়ে পড়েছে। আমরা তাই আদালত ও বিচারকের সংখ্যা বাড়ানোর কথা বলব। দ্রুত বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রে পুলিশের একটি বড় ভূমিকা রয়েছে। অপরাধের দ্রুত তদন্ত না হলে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার ক্ষেত্রে বিলম্ব হবে, এটাই স্বাভাবিক।
আমরা চাইব, প্রতিটি অপরাধের দ্রুত তদন্ত শেষ করে অভিযোগপত্র তৈরি করার চেষ্টা নেবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এ ক্ষেত্রে সাগর-রুনী হত্যাকাণ্ডের বিচারের প্রশ্ন তোলা যায়। দীর্ঘ সময় পরও এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের সুরাহা করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এখন থেকে সংঘটিত অপরাধসমূহের দ্রুত বিচার নিশ্চিত হবে- এটাই প্রত্যাশা।

Last Updated on

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
সিলেটের বার্তা টুয়েন্টি ফোর ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত
Developed By: Nagorik IT